আপনার বাইবেল

 

আপনার বাইবেল
“তোমার বাক্য আমার চরণের প্রদীপ এবং আমার পথের আলোক”, অনেক বছর আগে রাজা দায়ূদ একথা বলেছিলেন। আপনার অবস্থা কি বা আপনাকে কি সিদ্ধান্ত নিতে হবে সেটি বড় বিষয় না, কিন্তু রাজা দায়ূদের মত আপনারও একই নিশ্চয়তা থাকতে পারে। জুডি বারটেল লিখিত এই ১০৭ পৃষ্ঠার কোর্স যা লুইস জেটার ওয়াকারের মূল কোর্স থেকে নেয়া হয়েছে, আপনাকে বাইবেলের সাথে পরিচয় করিয়ে দেবে এবং আমরা যখন ঈশ্বরের কাছে কিছু জিজ্ঞাসা করি তখন তিনি কিভাবে আমাদের সাহায্য করেন এবং আমাদের পরিস্থিতি পর্যবেক্ষন করেন সেসব বিষয় বুঝতে সাহায্য করবে।
 
দেখুন / সম্পূর্ণ কোর্স ডাউনলোড করুন
দেখুন / পাঠের ভূমিকা ডাউনলোড করুন
 
১ম পাঠ: বাইবেল পাঠ করার উপকারিতা

যদি আপনি বাইবেল পড়েন তাহলে তা আপনার জীবনে প্রভাব ফেলবে, এবং যা অন্যদের জীবনকেও প্রভাবিত করবে। এই পাঠে আপনি জানতে পারবেন বাইবেল পাঠ করার মাধ্যমে কিভাবে আপনি উপকৃত হবেন। আপনি বাইবেল পড়ার বিভিন্ন কারণ জানতে পারবেন। এছাড়া প্রতিদিন বাইবেল পড়ার প্রয়োজনীয়তা সম্পর্কেও জানতে পারবেন।
 
দেখুন / উল্লেখিত পাঠ ডাউনলোড করুন
 
২য় পাঠ: ঈশ্বর আমাদের যে বইটি দিয়েছেন।
আপনি কি কখনও চিন্তা করছেন ঈশ্বর কিভাবে আমাদের বাইবেলটি দিয়েছেন? এটি কি স্বর্গদূতেরা নিয়ে এসেছিল এবং পৃথিবীতে রেখে অপেক্ষা করছিল কেউ পায় কিনা? ঈশ্বর বিভিন্ন শ্রেণীর কিছু সাধারণ লোককে ব্যবহার করেছেন এবং শত শত বছর ধরে তারা এই বই লিখেছেন যাকে আমরা বাইবেল বলছি। তারা লেখার চুক্তি এবং ঐক্য ঈশ্বরের পক্ষে স্বাক্ষ্য বহন করে যা কোনদিনও পরিবর্তিত হবে না।
 
দেখুন / উল্লেখিত পাঠ ডাউনলোড করুন
 
৩য় পাঠ: যেভাবে খুঁজতে হয় বাইবেল থেকে আপনি কি চান

বাইবেল সবকিছু এমনভাবে সাজানো হয়েছে যেন আমরা সহজে খুজে পাই। আমাদের বাইবেলের প্রকাশকরা এটি জানেন। অনুবাদের ক্ষেত্রেও তারা সব অধ্যায় ও পদ ঠিক রেখেছেন যেন মানুষ যা চায় সেটি খুজতে গিয়ে হারিয়ে না যায়।
এই পাঠে আমরা শিখব কিভাবে বাইবেলের উদ্ধৃতি বলতে হয় এবং লিখতে হয় এবং কিভাবে নির্দিষ্ট বিষয় ও প্রয়োজনীয় পদ খুজে বের করতে হয়।
 
দেখুন / উল্লেখিত পাঠ ডাউনলোড করুন
 
৪র্থ পাঠ: পুরাতনের নিয়মের পুস্তকসমূহ
আমরা ইতিহাসের বই থেকে বিভিন্ন বীরদের সম্পর্কে জানতে পারি, কিন্তু পুরাতন নিয়মে ঐ সময়কার সাধারণ মানুষ সম্পর্কে বলা হয়েছে। এই গল্পগুলোও কম গুরুত্বপূর্ণ না, কারণ এগুলোর মাধ্যমে আমরা ঈশ্বরের সাথে মানুষের যোগাযোগের স্পষ্ট চিত্র দেখতে পাই। পুরাতন নিয়মের পুস্তকগুলোকে বিষয়ভিত্তিক ভাবে পাঁচ ভাগে ভাগ করা যায়। তৃতীয় পাঠে আমরা পুস্তকগুলোর ছোট ভাগ সম্পর্কে জেনেছি যেমন- অধ্যায়, পদ প্রভৃতি। এখন আমরা এর শ্রেণীবিভাগ সম্পর্কে জানব।
 
দেখুন / উল্লেখিত পাঠ ডাউনলোড করুন
 
৫ম পাঠ: নূতন নিয়মের পুস্তকসমূহ
নূতন নিয়মের পুস্তকগুলো লেখার সময় পুরাতন নিয়মের চিত্রগুলো খুব দ্রুত পরিবর্তন হয়ে যায়। ভাববাদীদের যুগ শেষ হয়ে আসে এবং মানুষ আধ্যাত্বিকভাবে হতাশ হয়ে পড়ে। ঈশ্বর ভাগ্যক্রমে ঐ সময় তার পুত্রকে পাঠিয়েছিলেন এমন না। গ্রীকরা সুসমাচার প্রচারের জন্য সাধারণ ভাষা ব্যবহার করে আর রোমীয় এর প্রতিবাদ করে এবং সুসমাচার প্রচারকে স্বাধীন করে।
 
দেখুন / উল্লেখিত পাঠ ডাউনলোড করুন
 
৬ষ্ঠ পাঠ: কিভাবে আমরা জানতে পারি বাইবেল ঈশ্বরের বাক্য।

প্রায় প্রত্যেক খ্রীষ্টিয়ান আগে বা পরে এই প্রশ্নের সম্মুখীন হয়: “ কিভাবে আপনি জানেন বাইবেল সত্য?”
এই প্রশ্ন নূতন না। মানব জাতির প্রথম পরীক্ষা শুরু হয়েছিল ঈশ্বরের বাক্যের দ্বারা। শয়তান সাপের বেশ ধারণ করে হবাকে বলেছিল, “ ঈশ্বর কি সত্যিই তোমাদের বলেছেন......?” (আদিপুস্তক ৩:১ পদ দেখুন) শয়তান এখনও মানুষের মনে একই সন্দেহ সৃষ্টি করে, “সত্যিই কি ঈশ্বর এসব বলেছেন?”
 
দেখুন / উল্লেখিত পাঠ ডাউনলোড করুন