খ্রীষ্টিয় পরিচর্যার উদ্ভাবন


খ্রীষ্টিয় জীবনের পূর্ণতা
খ্রীষ্টিয় জীবনের পূর্ণতা প্রত্যেক বিশ্বাসীর লক্ষ্য এবং লক্ষ্যমাত্রায় পৌছে “খ্রীষ্টের গুরুত্ব সম্পূর্ণরুপে সর্বোচ্চ উচ্চে স্থাপন” (ইফিষীয় ৪:১৩)। এই কোর্সের ১৯২-পৃষ্ঠায়, রিক হাওয়ার্ড শিক্ষা দেন যে যদিও আমরা সম্পূর্ণরুপে খ্রীষ্টের মত হতে পারি না, আমরা আমাদের সর্বোচ্চ লক্ষ্যে পৌছাতে পারি, যা কিনা বাইবেল আমাদের জন্য ঠিক করে রেখেছে,যতক্ষণ না আমরা একটা লক্ষ্য শেষ করার চেয়ে বেশি কিছু অর্জন করতে পারি যেটা কিনা খুবই কম।

প্রার্থনা ও উপাসনা
উপাসনা মানে ঈশ্বরের প্রশংসা করা বা তাঁর সেবা করা। এই পাঠ্য বিষয়টির মধ্য দিয়ে আমরা আপনাকে প্রার্থনা ও উপাসনার এক নতুন জীবনের সাথে পরিচয় করিয়ে দেব বা এর মধ্য দিয়ে আপনি এক নতুন জীবনের পরিচয় পাবেন। মনে হবে, যীশু যেন তাদের বলেছিলেন “প্রার্থনা আর উপাসনাকে তোমরা জীবন থেকে আলাদা করতে পারনা। তোমরা কখনই একথা বলতে পারনা, “আমার প্রার্থনা শেষ হয়েছে আমি কাজে যাই । “প্রার্থনা আমাদের জীবনের প্রত্যেকটি বিষয়ের সাথেই জড়ানো। এই কোর্সে প্রার্থনাই উপাসনার প্রস্তুতি এবং যে পথে জীবন-যাপন করলে ঈশ্বর সন্তুষ্ট হন ও তাঁর উদ্দেশ্য পূর্ণ হয়,সেই পথে জীবন যাপন করা-ই উপাসনা।

দায়িত্বশীল খ্রীষ্টিয়ান
লেখক জোস্,আর, সিলভা ডেলগেডো আমাদের দেখিয়েছেন কিভাবে একজন বিশ্বস্ত ধনাধ্যক্ষ হওয়া যায়। একটি রুপাক্তক গল্পে, যীশু দুজন ভাল ধনাধ্যক্ষকে প্রশংসা করে বলেছিলেন একজন তার সম্পদ বুদ্ধিমত্তার সহিত পরিচালনা করে এবং অন্য ব্যক্তিকে দায়ী করে, তাকে যা দেওয়া হয়েছিল সে তা দিয়ে কিছুই করেনি। এই কোর্সে আমরা শিখতে পারবো কিভাবে পরিচালনা এবং পরিশোভিত করা যায়, যা কিনা ঈশ্বর আমাদের কাছে প্রত্যাশা করেন, হয়তবা তিনি একদিন বলবেন, “বেশ, উত্তম ও বিশ্বস্ত দাস, এস এবং প্রভুর আনন্দের সহভাগী হও।“(মথি ২৫;২৩)পদ।

রাজ্য, ক্ষমতা ও গৌরব
নতুন নিয়ম, নতুন সন্ধি বা চুক্তি যা কিনা ঈশ্বরের পুত্রের দ্বারা মানুষ হিসেবে যীশু খ্রীষ্ট্রের মাধ্যমে করা হয়েছিল, কোর্সের এই বিষয়টি লিখেছিলেন জিয়ান বাপতাইস সোয়াদাগো এবং মারসিয়া মাঙ্গার। নূতন নিয়মে জরিপ করে বাস্তবভাবে আমরা দেখতে পাই যে ক্ষমতার সাথে ঈশ্বর আজকের পৃথিবীর মন্ডলীর জন্য কথা বলেছেন,ঐতিহাসিক পটভুমিও তিনি নূতন নিয়মের মধ্যে প্রকাশ করেছেন। নূতন নিয়মের সম্পূর্ণ সত্য এবং এর সঠিক রিতী নিতী পরিস্কারভাবে এই পাঠের মধ্যে দিয়ে আপনাকে বুঝতে সাহায্য করবে। সেই সাথে এই পাঠ অন্যলোকদের কাছে ঈশ্বরের বাক্য তুলে ধরতে আপনার দক্ষতাকে বৃদ্ধি করবে।

তাবু, মন্দির এবং প্রাসাদ
রিক হাওয়ার্ড লিখিত এই পাঠ্য বিষয়টিতে আপনি বাইবেলের পুরাতন নিয়ম সম্বন্ধে জানতে পারবেন। এই পুরাতন নিয়মটি সৃষ্টির আরম্ভ থেকেই শুরু হয়েছিল, জল প্লাবনের সময় ও চলছিল এবং এ সময় ঈশ্বর অব্রাহামের বংশধরদের বেছে নিয়েছিলেন, লেখক বাইবেলের পুরাতন নিয়মে লেখা লোকদের সাথে ঈশ্বরের আচার-আচরণ নিয়ে আলোচনা করেছিলেন যাদের কিনা ঈশ্বর এই পৃথিবীতে ব্যবহার করার জন্য পছন্দ ও আর্শীবাদ করেছিলেন। অনেকের নাম, পর্যায় এবং ঘটনাবলি যা কিনা একজনের ঠিকানা জানতে পারা, বিভিন্ন প্রশ্নের মাধ্যমে প্রাসঙ্গিকভাবে বাইবেলের পুরাতন নিয়ম বোঝা যায়।

বাইবেল পড়ে বুঝুন
এই কোর্সে আপনি নির্দিষ্ট পদ্ধতি অনুযায়ী বাইবেল অধ্যয়ন করতে শিখবেন। প্রথম খন্ডে আপনি অধ্যয়নের পদ্ধতি, বিশেষ বিশেষ শব্দ ও একটি বিষয়ের সংঙ্গে অন্য বিষয়ের সম্পর্কের বিষয় শিখবেন। বাইবেল বিশদভাবে অধ্যয়নের জন্য এগুলি খুবই প্রয়োজনীয়। পরবর্তী খন্ডে সামগ্রিক বা এককভাবে বই-হিসাবে বাইবেল অধ্যয়ন সম্পর্কে বিস্তারিত আলোচনা করা হয়েছে। এই বইয়ের শেষ খন্ডে বাইবেল অধ্যয়নের জন্য জীবন বৃত্তান্ত, ভৌগোলিক, ভক্তি প্রার্থনার জন্য দরকারী বিষয়গুলো আলোচিত হয়েছে। সঠিকভাবে বাইবেল অধ্যয়নের জন্য বইটিতে যথেষ্ট সাহায্য দেওয়া হয়েছে। কিন্তু এর প্রধান যে উদ্দেশ্য তা হল ছাত্রদেরকে আত্মিক উন্নতি সাধন করা, আর এজন্য প্রয়োজনীয় সব বিষয় এতে দেওয়া হয়েছে।

সত্যের ভিত্তিমূল
আপনি সম্ভবত: ইতিমধ্যেই আবিষ্কার করেছেন যে, পবিত্র শাস্ত্রের শিক্ষাগুলি বিষয় অনুসারে সাজানো হয়নি। উদাহরণ স্বরুপ আদি পুস্তকে কিম্বা বাইবেলের অপর কোনো বইতেই আমরা ঈশ্বরের বিষয়ে পরিপূর্ণ ব্যাখ্যা পাই না। এই জন্য, কোনো একটি বিশেষ বিষয়ের সাথে সম্পর্কিত সমস্ত শিক্ষা লাভ করবার একটি গুরুত্বপূর্ণ পথ হলো সমগ্র বাইবেল অধ্যয়ন করা। লেখক ফ্লুয়েড সি.উডওয়ার্থ, জুনিয়র এবং ডেভিড ডি.ডানকান বাইবেল পড়ার ক্ষেত্রে তিনি লক্ষ্য করেন এই মহাবিশ্ব, এর শাসনকর্তা, প্রজাবর্গ এবং তাদের বিকাশের জন্য ঈশ্বরের মনোনীত কাঠামো সম্পর্কে শাস্ত্র কি শিক্ষা দেয়। ছাত্ররাও আবিষ্কার করতে পারবে শাস্ত্র আমাদের ভবিষ্যত সম্পর্কে কি বলে।

খ্রীষ্টিয় মন্ডলীর পরিচর্যা
সম্ভবত আপনি মনে করেছিলেন যে খ্রীষ্টের ক্রুশীয় মৃত্যুতেই তা শেষ বা সম্পূর্ণ হয়েছে। না তা না খ্রীষ্ট নিজেই তার মন্ডলীকে সারা বিশ্বে পরিত্রাণের বাণী পৌছে দেওয়ার এই মহান দায়িত্ব দিয়ে গিয়েছেন। লেখক জেসি মেরেন্ডা শিক্ষা দেন যে,মন্ডলীকে যীশু তার কর্মভারের দায়িত্ব বা ক্ষমতা দিয়ে গিয়েছেন যেন ঈশ্বরের পক্ষে কাজ করে। শুধুমাত্র মন্ডলীকে কাজ করতে বলা হয়নি, যার জন্য যীশুখ্রীষ্ট আমাদের সাহায্যকারী হিসেবে পবিত্র আত্মাকে আমাদের মাঝে পাঠিয়েছেন। পবিত্র আত্মা আমাদের কাজের মাধ্যমে এবং পরিপূর্ণ ভাবে ঈশ্বরের পরিকল্পনা পুনরুদ্ধার করে।

নূতন মন্ডলী স্থাপন
কিভাবে মন্ডলীর শুরু হয় এবং তা বৃদ্ধি পেয়ে চারিদিকে ছড়িয়ে পড়ে, নূতন নিয়মে আমরা তার বর্ণনা পাই। লেখক লেরী পেইট দেখান যে নতুন মন্ডলী পবিত্র আত্মার যে পরিচালনা প্রাথমিক মন্ডলীগুলিতে ছিল তার দ্বারা বর্তমান সময়ের জন্য সে সময়কার নীতিমালা ও আদর্শ ,উদ্দেশ্য যা কিনা একটি চার্চের প্রত্যেক সংস্কৃতির এবং দলের নির্দেশনা স্বরুপ কাজ করে থাকে।

খ্রীষ্টিয় বৃদ্ধিতে সাহায্য করা
মন্ডলীর পরিচর্যায় খ্রীষ্টিয় তত্বাবধান ও শিক্ষাদান অত্যন্ত প্রয়োজনীয়। শিক্ষাদানের পরিচর্যা আমাদের খ্রীষ্টিয় বিশ্বাসে পরিপক্কতা অর্জনে সাহায্য করে। অন্য লোকদের কাছে সুখবর প্রচারের কাজে আমাদের প্রশিক্ষণ ও প্রস্তুতির ব্যাপারে তা অত্যন্ত সহায়ক। আপনাকে আত্মিক পরিপক্কতা অর্জনের পথে বৃদ্ধি পেতে এবং অধিকতর খ্রীষ্টিয় শিক্ষার প্রয়োজন সম্পর্কে আপনাকে সচেতন হতে সাহায্য করবে। তাছাড়া খ্রীষ্টিয় বিশ্বাসী সম্প্রদায়ের মধ্যে আত্মনির্ভরশীলতা একটি বল বা শক্তি হিসেবে বিদ্যমান রয়েছে। যারা নতুন বিশ্বাসী তাদেরকে বেশী করে জানানো এবং

আত্মিক দানগুলি
পবিত্র আত্মা সম্বন্ধে, ‘ভাইয়েরা, আমি চাই না যে, পবিত্র আত্মার দেওয়া দান সম্বন্ধে তোমাদের অজানা থাকে’ পৌল (১ম করিন্থিয় ১২:১পদ)লিখেছেন। খ্রীষ্ট দেহের (মন্ডলীর) জন্য আত্মিক দানগুলি খুবই প্রয়োজনীয়।লেখক রবার্ট ব্রান্ট আমাদের আত্মিক দানগুলি সম্বন্ধে শিক্ষা দিয়েছেন, যা কিনা প্রত্যেক বিশ্বাসীদের কাছে আরও আর্শীবাদের কারণ হয়ে দাড়াবে ও আরও দক্ষতার সাথে খ্রীষ্টের সুসমাচার প্রচার করতে সক্ষম হবেন।

প্রচার করা এবং শিক্ষা দেওয়া
লেখক আরনেষ্ট পেট্রি সুস্পস্টভাবে দেখিয়েছেন প্রচার এবং শিক্ষা দেবার মাধ্যমে কিভাবে উপযুক্তভাবে ঈশ্বরের সাথে যোগাযোগ রাখা যায়। এরকম দুটো পথের মাধ্যম ছাড়াও আরো বিভিন্নভাবে ঈশ্বরের বাক্য প্রচার করা যায়। তবে খ্রীষ্টিয়ান ইতহাসে একটি নির্দিষ্ট সময়ে পদ্ধতিগত কিছু বৈশিষ্ট্যতা সংগঠিত হয়েছিল। অনধিগোষ্ঠির কাছে সুসমাচার প্রচার এবং আধ্যাত্মিক পরিপক্কতার জন্য পাঠকদের জন্য পদ্ধতিগতভাবে এই পাঠে গুরুত্ব দেওয়া হয়েছে।

সুসমাচার প্রচার
You have probably already shared your testimony with others and realized the need to give the message of salvation clearly and simply. You need to have at your fingertips the Scriptures that will aid you in responding to those who seek to know more about Jesus. Authors Robert and Evelyn Bolton will help you use what you already know about salvation and the joy of serving God so that you can better share the pleasure of being a Christian. ঢেকে রাখার জন্য আপনাকে পরিত্রাণ দেওয়া হয়নি, তাই আপনি অন্যান্যদের কাছে খ্রীষ্টের পক্ষে সাক্ষ্য দিচ্ছেন। হ্যাঁ, তা আপনাকে করতে হবে, এবং সাথে সাথে পরিত্রাণের সুখবর সহজ-সরল ভাবে মানুষের কাছে পৌছে দিতে হবে। বাইবেলের মধ্যকার সমস্ত বিষয়গুলো আপনার নখ-দর্পণে থাকবে যাতে খ্রীষ্ট সম্পর্কে যারা জানতে চায়, বা খ্রীষ্টকে জীবনের ত্রাণকর্তা হিসাবে গ্রহণ করতে চায়, তাদের সমস্ত প্রশ্নের জবাব দিতে পারেন। রবার্ট বোলটন ও ইভলিন বোলটন লিখিত “সুসমাচার প্রচার” থেকে আপনি পরিত্রাণ সম্বন্ধে যা জানতে পেরেছেন তা আপনাকে ব্যবহার করতে সাহায্য করবেন এবং আনন্দের সহিত ঈশ্বরের সেবা করা, সুতরাং আপনি একজন খ্রীষ্টিয়ান হিসেবে খ্রীষ্টের আনন্দ সকলের সাথে সহভাগিতা করতে পারবেন।

জীবনের সমস্যাবলির সমাধান
যখন আপনি সমস্যায় পড়েন, তখন আপনি কি জানেন কোথায় তার উত্তর খুজে পাওয়া যায়। লেখিকা ডরথি জনস্ আপনার সকল সমস্যা বিজয়ের সাথে মোকাবিলা করার জন্য সাহায্য করবেন। আমরা যে সমস্যাগুলির সম্মুখীন হই সেগুলির সহজ কোন সমাধান পাওয়া সম্ভব নয়। আমরা যে বিভিন্ন সমস্যায় পড়ি, সেগুলি থেকে উদ্ধার পাবার উপায় বাইবেল আমাদের কাছে প্রকাশ করে, এবং এছাড়া কিভাবে আমরা বিভিন্ন সমস্যা এড়িয়ে যেতে পারি তাও বাইবেল আমাদের দেখিয়ে দেয়। খ্রীষ্টিয়ানরা তাদের বিভিন্ন সমস্যার কাছে পরাজিত হয় এটা ঈশ্বর চান না। তিনি আমাদের জন্য একজন সমস্যা সমাধান-কারীর বন্দোবস্ত করেছেন এবং যদি আমরা তাঁর কাছে সাহায্য চাই, তাহলে তিনি আমাদের প্রয়োজনীয় পথ নির্দেশ দেবেন এবং আমাদের সমস্যাগুলিকে বিজয়ে পরিণত করতে সাহায্য করবেন।

লোক, কাজ এবং লক্ষ্য
নীতি ও পদ্ধতি- এই দুই উপায়েই আমরা সবচেয়ে বেশী শিক্ষালাভ করে থাকি। এই পাঠ্য বইয়ে লেখক বেইলি ডেভিস এই দুইটি উপায়েই নেতৃত্বের বিষয় আলোচনা করেছেন এবং ঈশ্বর মনোমত বিশেষ কয়েকজন নেতার জীবন আদর্শ থেকে আমরা পদ্ধতিগত বা উদাহরণ-মূলক উপায় লক্ষ্য করবো। ছাত্রদের জন্য বাইবেল থেকে এই সকল নেতাদের অতিপরিচিত জীবন বৃত্তান্ত নিয়ে জানতে পারবে সেই সাথে বাইবেল থেকে নতুন প্রসঙ্গ ও নেতৃত্ব সম্বন্ধে জানতে পারবে। নেতৃত্বের বিষয়কে কেন্দ্র করে বাইবেল অধ্যয়নের চমৎকার সুযোগ আপনি লাভ করবেন। এছাড়াও আপনি মানব চরিত্রের উন্নতি ও নেতৃত্বদানের সর্বশেষ মতবাদ জানতে পারবেন এবং খ্রীষ্টিয় বিশ্বাস ও নীতির সাথে কিভাবে সামঞ্জস্য পূর্ণ ভাবে ব্যবহার করতে হবে, তা বুঝতে পারবেন।

ফলবান জীবন যাপন
একটি সুন্দর চরিত্র নিজে নিজেই বা ঘটনা চক্রেই সৃষ্টি হয়ে যায় না। পবিত্র আত্মা বিশ্বাসীর জীবনে যখন তাঁর ফলগুলি উৎপন্ন করেন তখনই খ্রীষ্টিয় চরিত্রের বিকাশ সাধন হয়। গালাতীয় ৫:২২-২৩ পদে আত্মার যে ফলগুলির বর্ণনা দেওয়া হয়েছে সেগুলি আমাদের জীবনে পবিত্র আত্মার উপস্থিতিরই পরিণাম। লেখক আন্তনীয় গিলবার্তো ডি সিলভা গালাতীয় ৫ অধ্যায় ও এর সাথে সম্পর্কযুক্ত অন্যান্য পদের উপর ভিত্তি করে লেখা একটি ব্যবহারিক পাঠ্যক্রম। এই কোর্সে মূলত জোর দেওয়া হয়েছে প্রেম, আনন্দ,শান্তি, ধৈর্য্য, মাধুর্য্য, মঙ্গলভাব, বিশ্বস্ততা, মৃদুতা এবং আত্মদমনের আশাজনক উন্নতিরধরণ এবং এতে লাভ হল খ্রীষ্টিয়ানদের মধ্যে সুসম্পর্ক এবং সেবা সৃষ্টি করা।